• Blogtog

৩৭৭ ধারার আইনজীবীরা প্রকাশ্যে আনলেন নিজেদের সমকামিতার সম্পর্ক


Menaka Guruswamy and Arundhati Katju
শুভাঞ্জন বসু।

মানেকা গুরুস্বামি এবং অরুন্ধুতি কাটজুর নাম হয়তো আমরা তেমন ভাবে শুনিনি। কিন্তু ৩৭৭ ধারার নিশ্চয়ই মনে আছে। সেই ঐতিহাসিক ধারার নেপথ্যে লড়াকু দুই নাম মানেকা গুরুস্বামি এবং অরুন্ধুতি কাটজু।


৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮তে LGBTQ দের পাশে দাঁড়িয়ে ভারতের আইনে স্থান করে নেয় ৩৭৭ ধারা। সমকামিতা তাদের জন্যেই আর ট্যাবু হয়ে নেই ভারতে।


প্রায় এক বছর বাদে এই দুই লড়াকু নারী নিজেদের আত্মপ্রকাশ করলো সমকামী হিসেবে। ফারিদ জাকারিয়ার সাথে সাক্ষাৎকারে তারা জানিয়েছেন সমকামিতার জন্যে লড়াই শুধু আইনের জন্যেই নয়, তাদের নিজেদেরও জয়।


"That's right. The loss in 2013 was a loss as lawyers, a loss as citizens. It was a personal loss"

২০১৩তে প্রথম সুপ্রিম কোর্টে কেস ওঠে সমকামিতার প্রশ্নে। কিন্তু তারপর তা নাকাচ হতে হতে গড়ায় ২০১৮ পর্যন্ত। ২০১৮ এর ঐতিহাসিক জয় আন্তর্জাতিক স্তরে পৌঁছে দেয় মানেকা গুরুস্বামি এবং অরুন্ধুতি কাটজুকে। এমনকি তারা ২০১৯ এর TIME magazine-র '100 most influential people'।


CNN এর সাক্ষাৎকারের পরেই অরুন্ধুতি কাটজু, দুজনের একটি ছবি টুইট করে বলেন-


এ লড়াই শুধু তাদের একার নয়, সত্যি হল এ লড়াই পুরো ভারতবাসীর। মেনে নেওয়ার ক্ষেত্রে ভারতীয় সমাজ কতটা এগিয়েছে তা সময় বলবে। কিন্তু মানেকা গুরুস্বামি এবং অরুন্ধুতি কাটজু আমাদের শিখিয়ে দিয়ে গেলেন প্রেম সহজ সরল আইন দিয়ে মাপার বিষয় নয়। আইনের বহু ঊর্ধ্বে তাঁর স্থান।


যতদিন না দ্যুতি চাঁদদের সম্পর্ক ভারতবাসী সহজে মেনে নিতে পারছে ততদিন লড়াই চলবে মানেকা গুরুস্বামি, অরুন্ধুতি কাটজু এবং অবশ্যই আমাদের।


পড়ুনঃ দ্যুতি চাঁদ: সব বাধা পেরিয়ে নিজের সমপ্রেমের কথা ঘোষণা করেছেন উচ্চস্বরে


  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Instagram

©2019 by Blogtog.