• Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Instagram

Get Blogtog updates on the go

We dont Spam or play with your data

©2019 by Blogtog.

  • Blogtog

রাজনীতির ময়দান থেকে এবার পুজো দখলকে কেন্দ্রকরে বিজেপি- তৃণমূলের চাপানোতর তুঙ্গে



দুর্গাপুজো মানেই বাঙালি, বাঙালির জীবনের যেন এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এই দুর্গাপুজো।

জাতি,ধর্ম,বর্ণ সবের উর্দ্ধে সমস্ত বাঙালি – অবাঙালি সকলেই মেতে ওঠে পুজোর এই কটা দিন।

তাই আজ ইহা ক্রমেই ধর্মীয় উৎসব থেকে সম্প্রতি ও মিলন উৎসবে পরিনত হয়েছে।


তাই বহুকাল ধরে দেখা গিয়েছে বহু রাজনৈতিক দল জনসাধারণের সাথে সংযোগ বাড়াতে

বাঙালির এই প্রানের উৎসবে সামিল হয়েছে।

বাংলার বর্তমান সরকারের মধ্যে এই প্রবনতা প্রবল ভাবে দেখা গেছে।

তাই সরকার বারংবার এই মিলন উৎসবের মাধ্যমে নিজেদের জনপ্রিয়তা বাড়াতে কলকাতার বিভিন্ন সর্বজনীন ও বারোয়ারি পুজো গুলিকে বিশেষ সাহায্য প্রদান করেছে।


পড়ুনঃ


আর এবার ঠিক একই পথে হাঁটতে চাইছে বঙ্গীয় বিজেপি।

সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে অভূতপূর্ব সাফল্যের পর বঙ্গীয় বিজেপি নেতৃত্ব সিন্ধান্ত নেয় এই বার দূর্গাপুজোর মাধ্যমে আরো জোরদার ভাবে জনসংযোগ বাড়াতে চাইছে।

সাম্প্রতি শোনা যায় বাংলার বিজেপি নেতৃত্ব মহানগরের বেশ কিছু বড় পুজো কমিটির সাথে বৈঠক করে,

তাদের সাহায্য প্রদানের উদ্দেশ্যে।

এর মধ্যে ছিল বাংলার শাসকদল ঘনিষ্ঠ কয়েকটি পুজো কমিটিও।

যার মধ্যে আছে খোদ মুখ্যমন্ত্রীর নিজের পাড়ার কালীঘাট সঙ্ঘশ্রী ক্লাব।



বিশিষ্ট মহলে খবর উঠেছিলো বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব চাইছিলো কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ এর হাতে এই পুজোর উদ্বোধন করানোর।

এই বিষয়ে গত শনিবার পুজো কমিটির অভ্যন্তরীন বিশেষ বৈঠক ডাকা হয়,

কারন এই কমিটির সাথে যুক্ত আছেন মুখ্যমন্ত্রীর ভাই কার্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়।

এইদিন কমিটির সভাপতি, সম্পাদক সহ সর্বজনের মতের প্রেক্ষিতে সিন্ধান্ত নেওয়া হয়

ক্লাব কর্তৃপক্ষ বিজেপির সাহায্যের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করবে।

এবিষয়ে বঙ্গীয় বিজেপি নেতৃত্বের পরিবর্তি পরিকল্পনা এখনো জানা যায়নি।


কিন্তু একথা স্পষ্ট যে ভোটের ময়দানের পর এবার পুজো মন্ডপেও বিজেপি তৃণমূল চাপানউতর তুঙ্গে উঠবে।


পড়ুনঃ