• Blogtog

ব্লগটগ নিবেদিত 'নাট্যরঙ্গে' ভাষা, অন্তররঙ্গ এবং লিলুয়া দৃষ্টিকোণের নতুন মাত্রাযোগ


ব্লগটগ আয়োজিত নাট্যরঙ্গের একটি দৃশ্য
শুভাঞ্জন বসু

রঙিন এক সন্ধ্যা। ব্লগটগের পক্ষ থেকে কাল উদযাপিত হল 'নাট্যরঙ্গ'। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যেই অনুষ্ঠানে, প্রত্যেকদলের অভিনয়ে মেতে উঠলো যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবেকানন্দ মঞ্চ।



সঞ্চালনায় - নম্রতা সেন এবং ঋদ্ধিমান ভট্টাচার্য

গত প্রায় একমাসের অক্লান্ত পরিশ্রমে আমরা ব্লগটগের তরফ থেকে আয়োজন করেছিলাম এই নাটকের অনুষ্ঠান। মূলত 'ইন্টিমেট স্পেস থিয়েটারের' ওপর। কাজেই মঞ্চ থেকে দর্শকাসন কিছুই থাকেনি প্রসেনিয়াম থিয়েটারের মতন। কিন্তু প্রথমবার বলা যায় এক্সপেরিমেন্ট করতে এসেই তিনটে দলের মধ্যে দেখা যায়নি কোন কুণ্ঠা।


প্রথম দল হিসেবে উঠে আসে লিলুয়া দৃষ্টিকোণ ন্যাট্যায়ন তাদের নাটক 'বাঙ্গাল ঘটি ফাটাফাটি' নিয়ে।


বাঙাল ঘটি ফাটাফাটির একটি দৃশ্য


প্রথম মুহূর্ত থেকেই জমে ওঠা অনুষ্ঠান

প্রথম মিনিট থেকেই জমে যায় মঞ্চ। ৩০ মিনিটের এই নাটকে হাসি মজা করতে করতে শেষ মুহূর্তে মনুষ্যত্ব নিয়ে বেশ কঠিন প্রশ্নের মুখে ফেলে যায় কলাকুশুলিরা। মঞ্চসজ্জা এবং মেকআপ প্রশংসাযোগ্য। কিছু জায়গায় তথ্যের ঘাটতি থাকলে অভিনেতারা যে পুরো সময় জমিয়ে রাখতে পেরেছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ব্লগটগের তরফ থেকে লিলুয়া দৃষ্টিকোণকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন।


লিলুয়া দৃষ্টিকোণ নাট্যায়নের একটি দৃশ্য

এরপরেই চন্দন সেনের 'অরাজনৈতিক' নাটকটি নিয়ে মঞ্চে ওঠে 'ভাষা'।


ভাষার নাটকের একটি দৃশ্য

অভিভূত হওয়ার এক অন্য পর্যায়ে নিয়ে যায় ভাষার অভিনেতারা। নাটকের প্রথম থেকেই টানটান উত্তেজনা ধরে রাখে ঋত্বিক, কুণাল, প্রান্তিক, প্রিতম, স্বদেশরা। চন্দন সেনের এই নাটক যদিও এখনো সমান ভাবে বাস্তব, তাই সেই কাজটাই বর্তমান সমাজের প্রেক্ষিতে ফেলা বোধহয় সবচেয়ে কঠিন ছিল ভাষার পক্ষে। কিন্তু শুধুমাত্র সিঙ্গেল স্পেস ব্যাবহার করে, এবং লাইট মিউজিকের অপ্রতুলতা সত্ত্বেও যেমন অসাধারণ ভাবে পরিবেশনা করেছে ভাষার অভিনেতারা তা অতুলনীয়। বিশেষ করে ম্যাঙ্কি চরিত্রে কুণাল এবং জীবন চরিত্রে ঋত্বিক, ছোট ছোট ইমশনগুলোকে এত ভীষণ ভাবে তুলে ধরেছে যে কিছুক্ষণ বাকরুদ্ধ হয়ে ছিল দর্শকাসন।


ভাষার অভিনেতা এবং সহকারীগন

কিছুক্ষণ বিরতির পর মঞ্চে ওঠে অন্তররঙ্গ।


অন্তররঙ্গ এর আধুনিক একটি নিবেদন 'গান-গল্প-কথা'

অন্তররঙ্গ এর আগেও আমাদের অনুষ্ঠানে মাতিয়ে দিয়েছিল সবাইকে। এরবারেও তার অন্যথা হয়নি। তাদের নতুন প্রযোজনা 'গান-গল্প-কথা' নিয়ে হাজির হয়েছিল বিপ্রজিৎ, শুভঙ্কররা। শুভঙ্করের কবিতা রচনা এবং পাঠ অতুলনীয়। মোহিত হয়ে দর্শক যার প্রতিটি রস পান করেছে। বিপ্রজিৎ-এর গানের সঙ্গত যা তুলে নিয়ে গেছে অন্য মাত্রায়। প্রতিটি বাক্যে ছিল এক নতুন পাওনা। বিশেষ ধন্যবাদ দিতে হয় কাহনে সৌমিকের কথা। প্রতি তালে নতুন ছন্দ তৈরি হয়েছিল বিবেকানন্দ হলে। শেষ মুহূর্তে নাচতেও দেখা গেল পেছনে।



ব্লগটগ নিবেদিত পরিচালকের একটি দৃশ্যে সায়ন্তন এবং অতিন্দ্রিলা

এরপর ছিল আমাদের পক্ষ থেকে 'পরিচালক'। সায়ন্তন অতিন্দ্রিলা জয়দ্বিপ শুভ্রনীল শুভ্র এবং কিংশুকের অভিনয়ে। আমাদের নাটকটি কেমন লেগেছে জানাতে ভুলবেন না।


ব্লগটগের নাটকে অতিন্দ্রিলা

যদি নাটকের পরে অতিন্দ্রিলা এবং সায়ন্তনের অভিনয়ের প্রশংসা শোনা গেল সবার কাছে। তবু আমরা অপেক্ষায় থাকবো সবার মতামতের। যাতে আগামীতে আর সবুজ নতুন তুলে ধরতে পারি আপনাদের কাছে।


আবারও ধন্যবাদ জানাই আপনাদের, আমাদের অনুষ্ঠান সাফল্যমণ্ডিত করে তলার জন্যে। 'গান ভালবেসে গান' এবং 'শব্দ-কল্প-দ্রুম' এর পর এই ছিল আমাদের তৃতীয় অনুষ্ঠান। প্রায় বহুদিনের লড়াইয়ের পর তুলে ধরতে পেরেছি আপনাদের সামনে আমাদের নাট্য-রঙ্গ। কাজেই আবারও ধন্যবাদ জানাই আমাদের সাথে থাকা তিনটে দল এবং অবশ্যই আপনাদের যারা প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতি মুহূর্তে জুগিয়ে গেছেন সাহস।



ব্লগটগ পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাদের জানাই আন্তরিক অভিনন্দন
অনুষ্ঠান শেষে ব্লগটগের তরফ থেকে তুলে দেওয়া হল 'সেরা লেখক ২০১৮' এর খেতাব ঋদ্ধিমান ভট্টাচার্যের হাতে।
138 views
  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Instagram

©2019 by Blogtog.