• Blogtog

বর্ধমান স্টেশনের নাম পাল্টে বটুকেশ্বর দত্ত। ইতিহাস কি সেই কথাই বলে?


Bardhaman station

শ্রাবস্তী পাঠক।

নতুন নাম!


প্রথমে একটি শহরের নামের ইতিহাস বলে নেওয়া যাক। বর্ধমান। ইতিহাসের শহর। জাহাঙ্গীরে সময় যে শহরের নাম ছিল বধ-ই-দেওয়ান। শহরে রাজ্যপাটের সূচনাও সেই সময়ে হয়েছিল সঙ্গম রাই-এর হাত ধরে ।


তবু নাম নিয়ে বিতর্ক এই শহরের পুরনো। সংস্কৃত, বৌদ্ধ, জৈন ধর্মগ্রন্থে এই শহরের নাম পাওয়া যায়। কোন মত অনুযায়ী জৈন তীর্থঙ্কর বর্ধমান মহাবীরের নাম অনুসারে নামকরণ হয়েছে বর্ধমান শহরের। আবার অনেকের মতে পুর্ব ভারতে যখন আর্য সভ্যতার বিকাশ হচ্ছিল, সেই সময় এই অঞ্চল যেভাবে বর্ধিষ্ণু হচ্ছিল তা দেখেই নাম হয় বর্ধমান। ইতিহাস আর রহস্যের বৈচিত্র্যে এই শহর দাঁড়িয়ে মাথা উঁচু করে আজও।


পড়ুনঃ

লোকসংগীতে, বহু যুদ্ধ ঘাত-প্রতিঘাতের গল্প জলপাইগুড়ি জেলার


এই শহরের বুকে যেমন পা রেখেছেন মহাবীর। তেমনই এই শহর একের পর এক মনিমুক্তোর জন্ম দিয়েছে। বটুকেশ্বর দত্ত তেমনই এক নাম। স্বাধীনতা সংগ্রামী বটুকেশ্বর পরবর্তী জীবনে পাটনায় বসবাস শুরু করেন। চন্দ্রশেখর আজাদের হিন্দুস্তান রিপাবলিক সোশ্যালিস্ট রিপাবলিক অ্যাসোসিয়েশনে যোগ দেন। ভগৎ সিং-এর সাথে একসাথে কাজ করতে থাকেন। আজীবন কারাবাসে দণ্ডিত হয়েছিলেন ব্রিটিশ বিরোধী বিপ্লবী কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করার জন্য। বন্দি ছিলেন আন্দামান নিকোবরের কুখ্যাত জেলে।


এই শহরের নামের তাঁর স্টেশনেরও নাম। যে স্টেশনের সাথেও নানান ইতিহাস জড়িয়ে। এখান দিয়েই এসেছিলেন লর্ড কার্জন। বটুকেশ্বর দত্তের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ইতিহাসের সাক্ষী এই স্টেশনের নাম তাঁর নামে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। নিঃসন্দেহে গৌরবজনক পদক্ষেপ। কিন্তু এভাবেই শুধু এক মহান স্বাধীনতা সংগ্রামীর গৌরব ধরে রাখা সম্ভব!


এভাবেই শুধু সম্ভব শ্রদ্ধা প্রদর্শন! বিপ্লবীকে সম্মান দেওয়ার মাধ্যম হিসেবে খুঁজে নেওয়া যায় অনেককিছুই। এই শহরবাসীর আবেগ আর ইতিহাসে জড়িয়ে থাকা ‘বর্ধমান’ নাম আদরেই থেকে যাক না!


পড়ুনঃ

ভিউ বাড়ানোর দৌড়ে, মানুষের রুচি নষ্ট করে ফেলছে নিউজপোর্টালরা


Read more from this writer

27 views
  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Instagram

©2019 by Blogtog.