• Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Instagram

Get Blogtog updates on the go

We dont Spam or play with your data

©2019 by Blogtog.

  • Blogtog

'তোরা আর কী দেখলি? ফাইনাল হয়েছিল আমাদের সময়'-২০ বছর বাদে আমরাও বলবো



লাস্ট কবে এমন টানটান সিনেমা দেখেছি মনে পড়ছে না। হ্যাঁ একটা ছোটগল্প পড়েছিলাম। টানটান ক্লাইম্যাক্স। যদিও জানতাম হিরো জিতবে, ভিলেন হারবে তবুও দাঁতে আঙ্গুল চেপে শেষ পাতা পর্যন্ত পড়েছিলাম।

কাল ফাইনাল দেখতে দেখতে দাঁতে আঙ্গুল না আঙ্গুলে দাঁত ছিল মনে নেই কিন্তু টেনশনে লাস্ট এক ঘন্টা সিগারেটের পর সিগারেট উড়িয়ে দিয়েছি।


হ্যাঁ, বলে রাখা ভালো শুরুতে দেখিইনি খেলা। ভারত নেই আবার দেখবো কি। দেখা শুরু করেছি ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ে আসার পর। ২৪১ তাড়া করতে গিয়ে ইংল্যান্ডের অবস্থাও ভারতের মতন। আমি হেব্বি মজা পেয়েছি।


এই অবস্থায় নিউজিল্যান্ডকেও সাপোর্ট করতে পারিনা। ইংল্যান্ড তো নয়ই।


খেলা এগোচ্ছে, স্ট্রোকসের প্রেমে পড়েছি। লেগ সাইডকে স্ট্রোক যে পরিমান ভালোবাসে আমি তার ১০% ও আমার প্রেমিকাকে ভালবাসিনা। খেলা যত এগুলো কী ভাবে যেন ইংল্যান্ডের সাপোর্টার হয়ে গেলুম। এটাই বোধহয় নিয়ম। ফিল্ডিংয়ের এগারো জনের বিরুদ্ধে লড়ছে মাত্র দুইজন ব্যাটসম্যান। সিম্প্যাথি পেতে বাধ্য (সাধে কি বাংলা জুড়ে কোটি কোটি বামপন্থী! মার্ক্স এঙ্গেলস কিস্যু না। শুধু সিম্প্যাথি)।


খেলা এগোচ্ছে। প্রত্যেক বলে আমি আরও বেশী বেশী করে ইংল্যান্ডকে সাপোর্ট করছি। শেষ ওভারে লাগে ১৫।


এবার দুটো সিগারেট একসাথে মুখে দিয়ে টানছি। দু বল বিট। চার বলে লাগে ১৫। পরের বলে স্ট্রোকসের আবার প্রেমিকার কথা মনে পড়ে। বল তুলে লেগ সাইটে ছয়। তিন বলে নয়।

এর পরের বলটা হচ্ছে দুনিয়ার সেরা কিছু মুহূর্তের মধ্যে একটা। দুরান নিতে গিয়ে, ফিল্ডারের ছোঁড়া বল স্ট্রোকসের ব্যাটে লেগে চার। মানে আবার ছয়। দুই বলে লাগে তিন।


পরের দুই বলে এক এক করে দু রান।


সুপার ওভার।


চা বানিয়ে বসেছি। খাওয়া দাওয়া মাথায় উঠেছে। দুমাদুম পিটিয়ে সেই ১৫ রান করল আবার ইংল্যান্ড।

নিউজিল্যান্ডকে করতে হবে ১৬। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস।


নাসিম এসে পেটাতে শুরু করল। খেলা জমে ক্ষীর। শেষ বলে রান আউট। নিউজিল্যান্ড ও ১৫।

মানে আবার টাই।


কিন্তু সর্বাধিক চার ছয়ের হিসেবে ইংল্যান্ড গেল জিতে। নিন্দুকরা প্রশ্ন তুলল নিয়ম নিয়ে।

আরে! নিয়ম থাকবে না? জানি ভাল লাগছিল খেলা দেখতে তাই বলে ড্র হলে সারাদিন খেলে জেতে হবে দুটো টিম কে?

মজা নাকি? রান রেট যদি থাকতে পারে, চার ছয়ের হিসেবও থাকবে।


একদম ঠিক নিয়ম। ইংল্যান্ড নিয়ম মেনে চ্যাম্পিয়ন। কিন্তু মন জিতে নিলো উইলিয়ামসন। না, কান্নাকাটি করেনি বলে নয়, ভাল ক্যাপ্টেনসি আর ব্যাটিং য়ের জন্যে।


বাঙালি চিরকাল হেরে যাওয়া পার্টির কান্না দেখতে অভ্যস্ত। তাই ভেবেছিল হেব্বি কাঁদবে কিউইরা। এতেই ভদ্রলোক পাঞ্জাবি দিয়ে চোখ মুছতে মুছতে বলবে- "ওগো বকুল কথাটা আজ থাক। একটু ওদের দেখেই কাঁদি।"

কিন্তু এমন হয়নি। তাই কুল ফুল লিখে সবাই বেশ আপন করে নিয়েছে উইলিয়ামসনকে(ওই কে সিম্প্যাথি)।

কেউ কেউ কাঁদতে না পেরে দুর্বাসা মুনির ছাপ খুঁজে পেয়েছে। গুপ্তিল ধোনিকে রান আউট করেছিল, তাই ঔ রান আউট হয়েছে। হা হা হা।


কর্মা ইজ আ বিচ এন্ড চিকেন কর্মা ইজ মদের চাট।


ওইসব কথা বাদ দিন, আসল কথা কাল টানটান খেলা হয়েছে এবং অদ্ভুত ব্যাপার হল ইংল্যান্ড ফাইনাল না জিতে বিশ্বকাপ জিতেছে। এটাই মনে রাখি।


আজ থেকে ২০ বছর বাদে(বেঁচে থাকলে) আমিও দাদুদের মতন বলব- "তোরা কি ফাইনাল দেখছিস? ফাইনাল হত আমাদের সময়। শোন তবে..."


143 views